কোটালীপাড়ায় স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থান

কোটালীপাড়া প্রতিনিধি :

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থান করেছেন এক গৃহবধু। উপজেলার তিলবাড়ী গ্রামে গত শুক্রবার বিকালে এ ঘটনা ঘটে। সরজমিনে জানা যায়, পিরোজপুর জেলার হাওলা গ্রামের সুনিল মৃধার মেয়ে সুপর্না মৃধা (২৬) সাথে কোটালীপাড়ার তিলবাড়ীর সুকদেব মজুমদারের ছেলে সান্তনু মজুমদার (৩১) এর ৭ বছর পূর্বে নোটারী পাবলিক, জয়দেবপুর, গাজীপুরের মাধ্যমে বিয়ে হয়। যাহার নং- ১০, তাং- ০২/০২/২০১৩। সুপর্না চাকুরীর সুবাদে গাজীপুর বসবাস করেন। সান্তনু মজুমদার, সুপর্নাকে স্ত্রীর অধিকার না দেওয়ার কৌশল অবলম্বন করে চিতশী গ্রামে আবার বিয়ে করে এবং সুপর্নাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিতে থাকে। এ ব্যাপারে সুপর্না মৃধা বাদী হয়ে সান্তনুকে বিবাদী করে কাশিমপুর থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন, যাহার নং- ২৫৮, তাং- ০৫/০৭/২০২০। বিয়ের খবর জানতে পেরে স্ত্রী সুপর্না, সান্তনু মজুমদারের গ্রামের বাড়ীতে এসে অবস্থান করে। পঞ্চানন মজুমদার, সৌরভ লস্কর, রমেশ মজুমদার, কিরন মজুমদার, হেলাল মোল্লা, মিহির মজুমদার, ইউপি সদস্য ফারুক মোল্লা, সাবেক ইউপি সদস্য বিকাশ মজুমদার সহ একাধিক এলাকাবাসী সাংবাদিকদের বলেন- এই সুপর্না মৃধা, সান্তনু মজুমদারের ঘরে তার স্ত্রী হিসাবে স্থান পাক, এটাই আমাদের দাবী। এ ব্যাপারে সুপর্না মৃধার সাথে কথা হলে তিনি বলেন- স্বামী সান্তনু মজুমদার ৭ বছরে আমার নিকট থেকে প্রায় ১২/১৩লক্ষ টাকা নিয়েছে, এখন আমি শুধু স্ত্রীর অধিকার পেতে চাই। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য সাংবাদিকগন সান্তনু মজুমদারের বাড়ীতে গেলে তাকে পাওয়া যায় নি। এ ব্যাপারে সান্তনু মজুমদারের পিতা সুকদেব মজুমদার সাংবাদিকদের জানান- একটি চক্র আমার মানসম্মান ক্ষুন্ন করার জন্য চেষ্টা করছে, সুপর্না মৃধা নামের কোন মেয়ের সাথে আমার ছেলের সম্পর্ক নেই।

নোটিশ

অনুমতি ব্যাতিত এই সাইটের কোন লেখা বা ছবি কপি করা নিষেধ, কপি করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।